চরভদ্রাসনে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে তরুনের আমরণ অনশন

নাজমুল হাসান নিরব,ফরিদপুর থেকে:: আবরাব নাদিম ইতু।ফরিদপুর সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের মার্কেটিং বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র।পিতা একজন স্কুল শিক্ষক।বাড়ি চরভদ্রাসন উপজেলার গাজিরটেক ইউনিয়নে।যে কোন যায়গায় অন্যায় দেখলে প্রতিবাদ করতে নেমে যান একাই।
চরভদ্রাসনের মানুষের দীর্ঘদিনের সমস্যা হলো স্বাস্থ্য সেবা।উপজেলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থাকলেও নেই তেমন ডাক্তার,নেই কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা পদ্ধতি।পর্যাপ্ত ঔষুধের ও ব্যবস্থা নেই।শুধুমাত্র একজন এস.এ.সি.এম.ও দিয়ে চলে রোগীদের চিকিৎসা। জরুরী কোন রোগী আসলে সেটাও পাওয়া যায়না।এছাড়া কোন গুরুতর রোগী আসলে তাকে সাথে সাথে জেলায় স্থানান্তর করা হয়।সাধারন রোগিদেরও অনেক সময় জেলায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়।
আর এই উপজেলাবাসীর তাদের মৌলিক অধিকার স্বাস্থ্য সেবা (২৪ ঘন্টা) নিশ্চিত করতে বুধবার সকাল ১০টা থেকে উপজেলা পরিষদের গেটের সামনে আমরন অনশনে নামে আবরাব নাদিম ইতু।সাথে কিছু স্থানীয় লোকজনও যোগ দেয়।
তিনি বলেন “স্বাস্থ্য সেবা আমাদের মৌলিক অধিকার,সামান্য কাটা ছেরা হলেই আমাদের ফরিদপুরে পাঠানো হয়।আমাদের এখানে স্বাস্থ্য কমপ্রেক্স থাকা সত্ত্বেও ,পর্যাপ্ত বাজেট থাকলেও কেন আমাদের ফরিদপুরে স্থানান্তর করা হয় ? কেন আমাদের নিম্ন পর্যায়ের ঔষুধগুলোও দেওয়া হয়না ? চরভদ্রাসন হাসপাতালের এই অনিয়ম ও দুর্নীতি যতক্ষন পর্যন্ত বন্ধ না হবে ততক্ষন আমি আমরন অনশন চালিয়ে যাব”।
এ ব্যাপারে চরভদ্রাসন স্বাস্থ্য কম্পেলেক্সের কর্মকর্তা আবুল কালাাম আজাদের অনুপস্থিতে ডা. রেজওয়ানা জানান,“আমাদের হাসপাতালে ডাক্তার সংকট রয়েছে।আগামি বিসিএস এ ডাক্তার নিয়োগ হলে এই সংকট দুর হবে।এছাড়া নিরবিচ্ছিন্ন সেবা দেওয়ার বিষয়টা আমরা উপরে জানিয়েছি”।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ফেইসবুক