নারায়ণগঞ্জের আদালত থেকে স্থায়ী জামিন নিলেন বিসিবি পরিচালক শওকত আজিজ রাসেল



img-249090

পুলিশের সাজানো অস্ত্র ও মাদক দ্রব্য আইনের দুই মামলায় পারটেক্স গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান আম্বর গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক শওকত আজিজ রাসেল নারায়ণগঞ্জের একটি আদালত থেকে স্থায়ী জামিন নিয়েছেন। এ দু’টি মামলায় তিনি আগেই উচ্চ আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। মঙ্গলবার সকালে নারায়ণগঞ্জের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফয়সাল আতিক বিন কাদেরের আদালতে সশরীরে উপস্থিত হয়ে স্থায়ী জামিনের আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন।
এর আগে ৪ নভেম্বর হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বেঞ্চ শুনানি শেষে ৫ হাজার টাকা বন্ডে পুলিশ প্রতিবেদন না দেওয়া পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করেন এবং নি¤œ আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিননামা দাখিলের নির্দেশ দিয়েছিলেন।
শওকত আজিজ রাসেলের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘হাইকোর্টের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে জামিনামা দাখিল করে তিনি পুলিশ প্রতিবেদন পর্যন্ত ৫ হাজার টাকা বন্ডে স্থায়ী জামিন নিয়েছেন।’
উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জের বিদায়ী পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বিসিবি’র পরিচালক শওকত আজিজ রাসেলের কাছে ৮ কোটি টাকা চাঁদা চেয়ে না পেয়ে গত ৩১ অক্টোবর রাতে ঢাকার গুলশান ক্লাব থেকে তার ব্যবহৃত গাড়িটি চালকসহ নিয়ে আসে। পরদিন ১ নভেম্বর রাতে গুলশান থেকে রাসেলের স্ত্রী-পুত্রকে তুলে নিয়ে আসা হয় হারুনের নির্দেশে। ২ নভেম্বর সকালে এসপি হারুন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং করে দাবি করেন, ১ নভেম্বর গভীর রাতে ব্যবসায়ি শওকত আজিজ রাসেলের গাড়ি থেকে মদ, বিয়ার, ইয়াবা ও পিস্তলের গুলিসহ তার গাড়ির চালক সুমনকে আটক করা হয়েছে। ওই সময় রাসেল পালিয়ে যান। সংবাদ সম্মেলনের পর দেখা যায় পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে ব্যবসায়ি রাসেলের বাবা পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এমএ হাশেম এবং তার পরেই রাসেলের স্ত্রী ও একমাত্র ছেলে বের হচ্ছে। তখন এসপি হারুনের নির্দেশে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মাদক ও অস্ত্র আইনে দু’টি পৃথক মামলা দায়ের করে পুলিশ।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ফেইসবুক