‘সরকারি হাসপাতালে দর্শনার্থী ব্যবস্থাপনা’র বিশেষ অংশ পরিবর্তন


স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় থেকে গত ১২ জানুয়ারি ‘সরকারি হাসপাতালে দর্শনার্থী ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক এক নির্দেশনা জারি করে। তবে নির্দেশনার একটি অংশ নিয়ে বিভিন্ন মহলের আপত্তির কারণে দু’দিনে মাথায় সে অংশটি পরিবর্তন করেছে মন্ত্রনালয়।

মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মো. আবু রায়হান মিঞা স্বাক্ষরিত ১২ জানুয়ারি জারি কার ওই নির্দেশনার ৬ নং-এ বলা হয়, ‘বিনা অনুমতিতে হাসপাতালের ভেতরে রোগী বা স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রমের কোনও স্থিরচিত্র বা ভিডিওচিত্র ধারণ করতে পারবেন না। সংগৃহীত তথ্য প্রকাশের আগেই বস্তুনিষ্ঠতার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সম্মতি গ্রহণ করতে হবে’। মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) সংশোধিত নির্দেশনায় এই অংশটুকু বাদ দেয়া হয়েছে।

সংশোধিত নির্দেশনায় বলা হয়েছে, মানসম্পন্ন ও নিরাপদ চিকিৎসা প্রদান করতে হলে রোগীর সাথে আগত দর্শনাথীদের নিয়ন্ত্রণ করা অতীব জরুরি। কেননা, তাদের স্বাস্থ্যবিষয়ক অজ্ঞতা এবং রোগ-জীবাণুর সংক্রমণ রোধে করণীয় বিষয়ে জ্ঞানের অভাবে অধিকাংশ সময়ই কাঙ্খিত পরিবেশ/পরিস্থিতির অবনতি হয়। এছাড়া ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত দর্শনার্থী হওয়ায় হাসপাতালে নিরবতা, পরিচ্ছন্নতা, ইউটিলিটি সার্ভিস, রোগীর গোপনীয়তা এবং চিকিৎসাসেবী ও প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা বিঘিœত হয়।

এ অবস্থায় দেশের সব সরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষকে নির্দেশক্রমে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা প্রদান করা হলো- প্রত্যেক হাসপাতালে দর্শনার্থী পাস চালু করতে হবে এবং প্রতিটি পাসের জন্য নিরাপত্তা জামানত চালু করা যেতে পারে। রোগীর অসুস্থতা বিবেচনায় একজন রোগীকে সহায়তার জন্য সর্বোচ্চ দুইজন দর্শনার্থীকে পাস দেওয়া যেতে পারে। হাসপাতাল ত্যাগের পূর্বেই পাস ফেরত প্রদানপূর্বক নিরাপত্তা জামানত ফেরত নিতে পারবেন। হাসপাতালের সকল চিকিৎসক ও নার্সসহ কর্মচারীরা বৈধ পরিচয়পত্র দৃশ্যমানভাবে বহন করবেন। আগত দর্শনার্থীদের জন্য পাস ইস্যু করার সময় নাম, ঠিকানা, মোবাইল নং, পরিদর্শনের কারণ ইত্যাদি তথ্য-সম্বলিত রেজিস্টার সংরক্ষণ করা যেতে পারে। দর্শনার্থী বিষয়ক নিয়মাবলি রোগী বা রোগীর সাহায্যকারীকে অবহিত করতে হবে। এছাড়া দর্শনার্থী বিষয়ক নিয়মাবলি সহজে দৃষ্টিগোচর হয় এমন জায়গায় প্রদর্শন করতে হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

ফেইসবুক